এসএসসির গণিতের প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে শ্রীপুরে প্রধান শিক্ষক আটক

0
474
অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেন নাহিন

মোশারফ হোসাইন তযু

এসএসসির গণিতের প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে কেন্দ্র সহকারী সচিব ও শ্রীপুরের আলহাজ্ব ধনাই বেপারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে আটক করেছে থানা পুলিশ। আজ শনিবার সকাল সাড়ে দশটায় উপজেলার মাওনা কেন্দ্রের পিয়ার আলী কলেজ ভেন্যুতে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত শিক্ষক আমজাদ হোসেন নাহিন উপজেলার আলহাজ্ব ধনাই বেপারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও এসএসসি পরীক্ষার মাওনা কেন্দ্রের সহকারী সচিব।

জানা যায়, সকাল ১০টা থেকে গণিত পরীক্ষা চলছিল। আধা ঘন্টার নৈব্যত্তিক পরীক্ষা প্রায় শেষের পথে। সাড়ে দশটার কিছু আগে ওই কেন্দ্রের সহকারী সচিব ও উপজেলার আলহাজ্ব ধনাই বেপারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেন নাহিন শিক্ষার্থীদের দেওয়ার জন্য সংরক্ষিত লিখিত প্রশ্নপত্রের বান্ডেল থেকে একটি প্রশ্ন সরিয়ে নিজের পকেটে রাখেন। এ সময় কেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলার রক্ষার দায়িত্বে থাকা শ্রীপুর পুলিশের শিক্ষানবিশ উপপরিদর্শক নয়ন ভূঁইয়া ঘটনাটি দেখে ফেলেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই ওই কেন্দ্র সহকারী সচিব প্রশ্নপত্রসহ কেন্দ্র থেকে বের হওয়ার জন্য পিয়ার আলী কলেজ ভেন্যুর মূল ফটকের বাইরে যেতে চাইলে পুলিশের ওই কর্মকর্তা শিক্ষকের পিছু নেন।

শিক্ষক ফটকের বাইরে গিয়ে প্রশ্নপত্রটি অন্য কাউকে হস্তান্তরের চেষ্টা করছিলেন । এ সময় শিক্ষককে প্রশ্নসহ হাতেনাতে ধরে ফেলেন পুলিশ কর্মকর্তা। তাৎক্ষণিক শিক্ষক তার কাছে প্রশ্নপত্র থাকার বিষয়টি অস্বীকার করলে তাকে নিয়ে নির্দিষ্ট কক্ষে গিয়ে ওই কক্ষে সংরক্ষিত প্রশ্নপত্রগুলো গণণা করে একটি প্রশ্নপত্র কম পাওয়া যায়। পরে পুলিশ ওই শিক্ষকের পকেট থেকে প্রশ্নটি উদ্ধার করেন।

বিষয়টি কেন্দ্র সচিব ও মাওনা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহজাহান সিরাজকে জানান। কিছুক্ষণের মধ্যেই শিক্ষা কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে এসে অভিযুক্ত ওই শিক্ষককে দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দেন। পরে শ্রীপুর থানা পুলিশ তাকে আটক করে নিয়ে যায়। এসএসসি পরীক্ষার মাওনা কেন্দ্রের সচিব শাহজাহান সিরাজ জানান, প্রশ্নপত্রসহ শিক্ষককে আটক করা হয়েছে। তাকে পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট সকল দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম শ্রীপুর বার্তাকে জানান, পরীক্ষা চলাকালীন সময় কেন্দ্র সহকারী সচিবের কাছে কেন্দ্রের বাইরে প্রশ্নপত্র পাওয়া গেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে গেছে। তদন্তের স্বার্থে পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট সকল দায়িত্ব থেকে অভিযুক্ত শিক্ষককে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তদন্তপূর্ব এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here