শ্রীপুরে নিজের বসতবাড়ির আসবাবপত্র ভাঙচুর করে প্রতিপক্ষকে ফাঁসানোর অভিযোগ

0
509

শ্রীপুর বার্তা প্রতিবেদক:

শ্রীপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংর্ঘষে মহিলাসহ ৬জন আহত হয়েছে। মঙ্গলবার ইফতারের পূর্বে উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের বেলতলি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের লোকজন পৃথক লিখিত অভিযোগ থানায় দায়ের করেছে। আহতরা হলেন আলতাফ হোসেন , ফাতেমা আক্তার, আলিম উদ্দিন, মাওনা ইউনিয়ন ৫নং ওর্য়াড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জহির মিয়া ও মোশারফ হোসেন। মোশারফ হোসেনকে শ্রীপুর উপজেলা হাসপাতাল ও বাকীদের স্থানীয় ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

জানা যায়, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরে পূর্বের এমপির সমর্থকদের সাথে বর্তমান এমপির সমর্থকদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কয়েক মাস ধরে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। বেলতলি গ্রামের উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি পূর্বের এমপির সমর্থক কবির হোসেনের সাথে বর্তমান এমপির সমর্থক ওমর আলীর ছেলে শরীফ উদ্দিন ও কবীর হোসেনের সমর্থকদের মধ্যে মঙ্গলবার বিকেলে হামলার ঘটনা ঘটে। এসময় কবির হোসেনের সমর্থকদের মধ্যে পাঁচ ও অপর শরীফ উদ্দিনের একজন আহত হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, আতিকুল ইসলামের নামে বন মামলার ওয়ারেন্ট থাকায় তাকে শ্রীপুর থানা পুলিশ গ্রেফতার করে। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করে। আতিকুলের লোজনের ধারণা শরীফ পুলিশ কে খবর দিয়ে আতিকুল কে গ্রেফতার করতে সহায়তা করেছে। পরে শরীফ ,মোশারফ ও মান্নানের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে। তবে কবীর হোসেনকে ফাঁসানোর জন্য শরীফের নিজের বসতবাড়ির আসবাবপত্র নিজেই ভাংচুর করে থানায় অভিযোগ দায়ের করে। রফিকের মেয়ে মারিয়া জানায়, শরীফ নিজেই লোকজন নিয়ে তার ঘরের জিনিসপত্র ভাঙচুর করেছে।

উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি কবির হোসেন বলেন, শরীফ ১০/১৫জন লোক দা লাঠি নিয়ে আমার লোকজনের ওপর হামলা চালায়। নিজেদের ঘরের আসবাবপত্র নিজেরাই ভাঙচুর করে আমাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছে। এদিকে শরীফ উদ্দিন উল্টো অভিযোগ করে বলেন, কৃষকলীগ নেতা কবির হোসেন এলাকার লোকজদের সাথে শত্রুতা পোষণ করে ও আধিপত্য বিস্তার করার জন্য আমার বাসায় হামলা চালায়। এসময় আমার বাড়ির কয়েকজন সদস্য এ ঘটনায় আহত হয়েছে।
বুধবার শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল মালেক ও এসআই জাহাঙ্গীর আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here