শ্রীপুরে মুচি সিরালাল ফিরে পেল দোকানের জায়গা

0
249

মোশারফ হোসাইন তযু-নিজস্ব প্রতিবেদক

সিরালাল রবি দাস একজন চামড়া ব্যবসায়ী ছিলেন। সংসারে রয়েছে তার সাত কন্যা এক স্ত্রী। এতো বড় সংসারের যোগান দিতে প্রায়ই হিমশিম খেতে হতো তার। খেয়ে না খেয়ে চলতো তার সংসার। প্রায় ১০ বছর আগে কঠিন রোগে আক্রান্ত হয়ে ব্যবসা থেকে ছিটকে পড়ে যায়। পুরো শরীর হয়ে যায় অবশ।

সন্তানদের দিকে তাকিয়ে ভিক্ষাবৃত্তির পথ থেকে দূরে থাকেন। বেছে নেন মুচির কাজ। অর্থের অভাবে মালিকানা কোন দোকানে বসতে না পেরে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নের সাতখামাইর বাজারের ফুটপাতে একটি গাছের তলায় ছোট একটি দোকান বসিয়ে জুতা সেলাই ও পালিশের কাজ শুরু করেন। এখান থেকে সারাদিন যা আয় হয় তা দিয়েই চলছে তার সংসার।

সম্প্রতি স্থানীয় প্রভাবশালী একটি মহল সিরালাল রবিদাসের ছোট ওই দোকানের প্রতি নজড় পড়ে। চক্রান্ত করা হয় দোকান থেকে উঠিয়ে অর্থের বিনিময়ে অন্য কাউকে বসানোর। অভিযোগ উঠেছে
স্থনীয় ব্যবসায়ী মোজ্জামেল হক ও বরমী ইউপি সদস্য (সাবেক) ফজলুল হক ও তাদের সহযোগীরা আট হাজার টাকার বিনিময়ে রবিউল ইসলাম নামে এক পান ব্যবসায়ীকে সিরালাল রবিদাসের জায়গায় বসান।

এনিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে বরমী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শামছুল হক বাদল সরকারের নজড়ে আসে। বুধবার (১০ অক্টোবর) সকালে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন চেয়ারম্যান। এসময় পান ব্যবসায়ীকে তার মালামাল সড়িয়ে নেয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়। না গেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বললে পান ব্যবসায়ী সিরালাল রবিদাসের জায়গা থেকে উঠে যায়। ফিরে পায় সিরালাল রবিদাসের স্বপ্নের দোকান জায়গা।

এসময় বরমী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শামছুল হক বাদল সরকারের সাথে উপস্থিত ছিলেন,
সাতখামাইর উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক লিয়াকত হোসেন দুলাল, ইউপি সদস্য রনি আকন্দ, সাতখামাইর বাজার ব্যবসায়ী পরিচালনা কমিটির সভাপতি কাঞ্চন মিয়া, মোস্তফা কামাল, আক্তার পাঠান, বরমী ইউনিয়ন ৭নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি শামীম শেখসহ স্থানীয়রা।

দোকানের জায়গা ফিরে পেয়ে সিরালাল রবি দাস বলেন, বরমী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শামছুল হক বাদল সরকারের উদ্যোগে আমি আমার দীর্ঘদিনের কর্মস্থল ফিরে পেয়ে আমি আনন্দিত। কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here